Toreto Metal Stereo in-Ear Wired Headset Roar-TOR 260 Review

দ্বারা Ashwani Kumar | আপডেট করা Jul 26 2018
Toreto Metal Stereo in-Ear Wired Headset Roar-TOR 260 Review
DIGIT RATING
65 /100
  • design

    70

  • performance

    65

  • value for money

    90

  • feature

    60

  • PROS
  • ডিজাইন আর বিল্ড ভাল
  • চ্যানেল সেপারেশান ভাল
  • নয়েস ক্যান্সেলেশান এর USP
  • CONS
  • ভলিউম আপ-ডাউনের সমস্যা
  • ভলিউম বেশি হলে সাউন্ড লিক হয়

নির্ণয়

আপনারা যদি 500টাকার কম দামের কন হেডফোন কিনতে চান যা আপনাকে ভাল নয়েস ক্যান্সেলেশান দেবে আর এর সঙ্গে ভাল ডিজাইন, আর মেটাল বডি দেবে আর এর সঙ্গে আপনাদের ভাল চ্যানেল সেপারেশান দেবে তবে আপনারা এর বিষয়ে ভাবতে পারেন। Toreto Roar Tor-260 ইন-ইয়ার হেডফোনটি কিছুটা এরকম। তবে এতে কিছু ত্রুটি আছে। কিন্তু এর দাম দেখে তা মেনে নেওয়া যায়।

আসলে এই সময়ে বাজারে আপনারা অনেল আলাদা আলদা হেডফোন পাবেন কিন্তি আপনারা যদি বাজেট হেডফোন দেখতে চান তবে আপনাদের বাজেটে এর মধ্যে অনেক হেডফোনই হয়ত আপনাদের বাজেটে আসবে না। আর ডিজাইন আর ফিচার্সের ক্ষেত্রে এটি গড় হলেও এটি দেখে আপনি আকর্ষিত হবেন। আমি যদি আমার মতামত আপনাদের দি তবে এটা বলে রাখি যে প্রথমে কিন্তু এটি দেখে আমার এই ইন ইয়ার হেডফোনই আমার বেশি পছন্দ তা সে যে কোম্পানিরই হোক না কেন। তবে একটাই শর্ত যে এতে কম দামের সঙ্গে লঞ্চ হলেও তাতে যেন দরকারি ফিচার্স থাকে আর তা আমরা আপনাদের ওপরেই বলে দিয়েছি আর আসলে ইন-ইয়ার হেডফোন যে কোন জায়গায় ক্যারি করা খুব সহজ। আর এবার এই ডিভাইসটি কেমন তা দেখা যাক।

BUY Toreto Metal Stereo in-Ear Wired Headset Roar-TOR 260

Price 1099

Toreto Metal Stereo in-Ear Wired Headset Roar-TOR 260 detailed review

Toreti এমন একটি ব্র্যান্ড যা নিজেদের হেডফোন,পাওয়ার ব্যাঙ্ক, সাউন্ড সিস্টেম, চার্জার, কেবালা র কানেক্টার্স, কম্পিউটার ইত্যাদির জন্য পরিচিত। আর এর মানে এই যে আপনারা এই ব্র্যান্ডে অনেক প্রোডাক্ট পাবেন, আসলে সম্প্রতি অনেক কম দামে কোম্পানি একটি ইন-ইয়ার হেডফোন  Toreto Roar Otr-260 লঞ্চ ক্রেছিল, আমরা যদি এর দামের বিষয়ে কথা বলি তবে আপনাদের বলে রাখি যে এটি অ্যামাজন ইন্ডিয়াত্র মাধ্যমে 439 টাকায় কেনা যাবে। আর এই ডিভাইসটি আসলে 1,099 টাকায় লঞ্চ করা হয়েছে। আর এবার যখন প্রশ্ন ওঠে যে এটি Skullcnady, Sony, JBL, Senheiser, আর অন্যান্য হেডফোনের সঙ্গে কী বলব? এই বিষয়ে তথ্যের জন্য আমরা এই ডিভাইসের অনেক প্রধান বিষয় রিভিউ করেছি আসলে এই রিভিউতে এর দাম একটি অন্যতম বিষয়। আর এর সব থেকে বড় বৈশিষ্ট্য এর নয়েস ক্যান্সেলেশানের ক্ষমতা।


এটি একটি হং কং/ভারত নির্ভর কোম্পানি যা 2013 সালে শুরু হয়েছিল। আর এর শুরু থেকে আজ পর্যন্ত এরা ওপরে বলা প্রোডাক্ট ছাড়া ট্যাবলেট ডিজিটাল ক্যামেরা ইত্যাদিও নিয়ে এসেছে। আসলে যদি প্রতিযোগিতার কথা বলি তবে আপনার এখন অনেক বিখ্যাত কোম্পানির হেডফোন অনেক কম দামে পাবেন। আর আপনারা যদি এই ডিভাইসে অনেক কম দামে কিছু বৈশিষ্ট্য পান তবে তা দেখে শুনে নেওয়া উচিত। আর এছারা যদি ডিভাইসের মধ্যে কিছু ছোটখাট পার্থক্য আর কিছু ভাল ফিচার্স থাকে তবে তা রেকমেন্ড করা যায়। আর এর ফিচারের মধ্যে গান প্লে পজ করার সঙ্গে ফোনে হাত না লাগিয়ে তা যদি পরিবর্তন করা যায় তবে আরও ভাল। আর এর সঙ্গে সাউন্ড সব থেকে বেশি দরকারি জিনিস।

যদি কোন দামি হেডফোনে সাউন্ড কোয়ালিটি ভাল না হয় তবে তা কাজের নয়। তা সে যতই ট্রেন্ডি ফিচার্সে সঙ্গে আসুক না কেন। আর এছারা আপনারা যদি কোন হেডফোন ব্যাবহার ক্রেন আর তাতে কনফর্টেবেল না হন তবে তা ব্যাবহার যোগ্য নয়। আসলে হেডফোন অনেক কাজে লাগে, গেমিং করা, গান শোনা বা সিনেমা দেখার সময়ে এটি কাজে লাগে। তবে যদি আপনারা কণ হেডফোনে এই সব না পান তবে তা আপনাদের জন্য সঠিক হবেনা। আর যার সাউন্ড কোয়ালিটি ভাল হবে তাই আপনার বেশি কাজে আসবে। তবে এটি আসলে কেমন আর অন্যের থেকে কোথায় আলাদা তা আমরা এই রিভিউতে দেখব।

এই হেডফোন গুলির কিছু দরকারি ফিচার্সের বিষয়ে আমরা যদি কথা বলি তবে আপনাদের বলে রাখি যে এর মধ্যে আপনারা ইউনিভার্সাল কম্প্যাবিলিটি, হ্যান্ডি কন্ট্রোল আপনারা এতে পাবেন আর এছারা এতে আপনারা মেটাল বেস পাবেন।

Toreto Roar Tor-260 ইন-ইয়ার হেডফোনের ডিজাইন আর কমফর্ট

আপনারা যদি এই সময়ের অন্য কোন হেডফোন ব্যাবহার করে থাকেন তবে আওন্দাএর এইর ডিজাইন সেই রকমই লাগবে। কারন এটি এই সময়ে বাজারে উপস্থিত অন্য অনেক হেডফোনের মতন ডিজাইনের সঙ্গে লঞ্চ করা হয়েছে। আর এবার আপনারা এটি কাছ থেকে দেখলে দেখবেন যে এটি মেটাল বডির। আর যেখানে অন্য দিকে সব হেডফোনে আপনারা সুধু কেবেল্র সঙ্গে একটি ছোট ডিভাইস দেখতে পান, এখানে আপনারা একটা বটন পাবেন আর এর মাধ্যমে আপনারা গান ইত্যাচি চালাতে পারবেন। আর এর ভলিউম বেশি বা কমানোর জন্য কোন অপশান দেওয়া হয়নি, যা আমার নিজের নেগেটিভ লেগেছে, তবে এর দাম দেখে এটি ইগনোর করা যায়। আর আসলে যে দামে আপনারা এই ডিভাইসটি পাচ্ছেন এই সময়ে বাজারে সেই দামের অনেক ডিভাইস পাবেন।   কিন্তু ফিচার আর বডির বিল্ডে আপনারা অনেক পার্থক্য দেখতে পারবেন। যে বটনটি দিয়ে আপনারা কল রিসিভ করতে পারবেন তার ঠিক নিচে আপনারা এর মাইক্রোফোনও দেখতে পাবেন।

এর কেবেলটি বেশ ভাল আর আপনারা যদি ব্যাগে হেডফোন রাখেন আর তা ব্যাগ থেকে  বার করে ব্যাবহার করার সময়ে প্রায়ই তার জরিয়ে জাওয়ার সমস্যা দেখা যায় আর অনেক হেডফোনে তা খুব সহযে ঠিক করা গেলেও অনেক হেডফোনে তা ঠিক করতে অনেক সমস্যা হয়। তবে এই হেডফোনের সঙ্গে আমার এই ধরনের কোন সমস্যা হয়নি। আর এটি আমার বেশ ভাল লেগেছে। তবে ড্রাইভ করার সময়ে এটি ব্যাবহার না করাই ভাল কারন এতে নয়েস ক্যান্সেলেশান আছে।

আপনারা এটি যে কোন ডিভাইসের সঙ্গে খুব সহজেই ব্যাবহার করতে পারবেন, আর তা 3.5mm হেডফোন জ্যাক যুক্ত স্মার্টফোন হোক কিম্বা অন্য কন চিয়ারের ফোন এর পোর্ট এর সঙ্গে কানেক্ট হয়ে যায়। আর এটি আপনারা iPhone য়ের সঙ্গেও কানেট করতে পারবেন। আর এটি কানেক্টারের মতনই কাজ করে।

এর ইয়ারবাড আপনাদের কানে খুব সহজেই ফিট হ্যে যায়, আর আপনারা ভাল করে মিউজিকের আনন্দ নিতে পারবেন। তবে এটি বেশিক্ষন ব্যাবহার করলে আপনারা কানে গরম অনুভব পাবেন। তবে তা আপনাকে সমস্যায় ফেলবেনা। এটি আপনারা খুব সহজেই ব্যাবহার করতে পারবেন। তবে এটি সামলিয়ে রাখার জন্য কোম্পানি এর সঙ্গে কোন কেস দেয়নি। আর তাই এটি বেশি সময় ধরে ব্যাবহার করতে হলে আপনাদের একটি কেস নিতে হবে। আর এখানে আপনাদের এও বলে রাখি যে আপনারা এর সঙ্গে একটি ইয়ারবাডও পাবেন। আর এর মানে যে এর সঙ্গে আপনারা একটি এক্সট্রা ইয়ারবাড পাচ্ছেন।

Toreto Roar Tor-260 ইন-ইয়ার হেডফোনের পার্ফর্মেন্স

আমরা যদি পার্ফর্মেন্সের বিষয়ে কথা বলি তবে আপনারা ভাববেন যে একটি স্মার্টফোন আর তাদের ফিচার্সের স্পেক্স থেকে তার পার্ফর্মেন্সের বিষয়ে জানা যায় কিন্তু হেডফোনের ক্ষেত্রে পার্ফর্মেন্সের বিষয়ে কি করে জানা যায়। আর তাই আপনাদের বলে রাখি যে কোন হেডফোনের পার্ফর্মেন্সের বিষয়ে জানতে গেলে তা তাতে গান বা মিউজিক শোনা বা শোনার অভিজ্ঞতা থেকে হয়। আপনারা যদি কন বিখ্যাত গান শোনেন আর আলাদা আলাদা হেডফোনে পার্ফর্মেন্স দেখতে চান তবে আপনাকে এদের মধ্যে একটি বেছে নিতে হয় তবে আপনারা এদের মধ্যে পার্থক্য বুঝতে পারবেন। আর এই হেডফোনের পার্ফর্মেন্স জানার জন্য আমি দোকানে গিয়ে দোকান্দারের কাছ থেকে কেটি সস্তা হেডফোন কিনি আর তার দাম এর কাছাকাছিই কিন্তু পার্ফর্মেন্সে ক্ষেত্রে এদের দুটির মধ্যে আকাশ পাতাল পার্থক্য। আমরা আপনাদের সেই হেডফোনের কোম্পানির নাম এখানে বলছি না তবে এটুকু আপনাদের বলতে পারি যে আমি দুটিই এক সঙ্গে বারংবার ব্যাবহার করেছি আর এই হেডফোনের মধ্যেকার পার্থক্য জানতে পেরেছি।

সবার আগে আমি এই দুটি হেডফোনে একই হিন্দি আর বাংলা গান শুনেছি আর এর মধ্যে ক্লাসিকাল থেকে শুরু করে এই সময়ের ট্রেন্ডি গান দুই ছিল। আর এই দুটির মদ্যে অনেক পার্থক্য দেখা যায়। আর এটা বোঝানোর জন্য আমাকে আপনাদের একটি মুভি থিয়েটারে নিয়ে যেতে হবে আপনাদের কন হলে গিয়ে অনেক সিনেমা দেখলে আপনারা যদি কন সিনেমাতে এরোপ্লেনের লেফট থেক সাইটের আর ওড়ার শব্দ চান তবে আপনারা হয়ত এবার বুঝতে পেড়েছেন। আর এই দুটি হেডফোনে আপমি একদম একই গান শুনেছি আর একই রকমের পার্থক্য সুনেছি। এতে চ্যানেল সেপারেশান একদম আলাদা আলাদা ছিল।

আমি এই দুটির মাধ্যমে অনেক ইংরেজি গানও শুনেছি আর এর সঙ্গে ভিডিও দেখার মতন কাজও করেছি আর আমি দেখি যে চ্যানেল সেপারেশান এতে বেশ ভাল আর এছারা এর নয়েস ক্যান্সেলেশানের বিষয়ে আমি আগেই আপনাদের বলেছি। আর এর পার্ফর্মেন্সের বিষয়ে এটাই বলার যে আপনারা ভাল গান বা বেশি আওয়াজ সুন্তে চাইলে এক্তু বেশি সাউন্ড যুক্ত গান হলে এই হেডফোনের গান বেশি ভলিউমে শুনলে সাউন্ড বাইরে আসবে। আমার মতে এই হেডফোনে এখানে কিছুটা হলেও পিছিয়ে আছে। কারন আমরা যদি কোন বাস, ট্রেন বা প্লেনে যাই আর তখন সাউন্ড বাইরে আসে তবে তা মোটেও সুখকর হবেনা।

তবে এর শব্দ যে খুব বেশি দূরে যায় তা নয় তবে আপনি যেখানে আছেন তার আসেপাসে যদি কোলাহল বেশি না থাকে তবে আপনার কাছাকাছি বসে থাকা ব্যাক্তিরা এর আওয়াজ শুনতে পারবে। এই ইয়ারফোনের ফ্রিকুয়েন্সি 20Hz থেকে 20kHz  য়ের মধ্যে, কোম্পানি বলেছে যে এই ইয়ারফোনের সাউন্ড কোয়ালিটি ভাল। Toreto র ইয়ারফোন ল্যাপটপ, ট্যাবলেট, MP3/MP4 প্লেয়ার্স, পার্সোনাল কম্পিউটার, অ্যান্ড্রয়েদ আর iOS এবং উইন্ডো ডিভাইসের সাপোর্ট আছে। আর এছারা এই ইয়ারফোনে গোল্ড-প্লেটেড জ্যাক দেওয়া হয়েছে। আর এই ইয়ারফোনটি ক্রেতারা কালো, গ্রে আর সাদা রঙ্গে কিনতে পারবেন।

 

logo
Ashwani Kumar

Advertisements
Advertisements

Toreto Metal Stereo in-Ear Wired Headset Roar-TOR 260

Price : ₹1099

Toreto Metal Stereo in-Ear Wired Headset Roar-TOR 260

Price : ₹1099

Digit caters to the largest community of tech buyers, users and enthusiasts in India. The all new Digit in continues the legacy of Thinkdigit.com as one of the largest portals in India committed to technology users and buyers. Digit is also one of the most trusted names when it comes to technology reviews and buying advice and is home to the Digit Test Lab, India's most proficient center for testing and reviewing technology products.

We are about leadership-the 9.9 kind! Building a leading media company out of India.And,grooming new leaders for this promising industry.